Blog Single

16 Apr

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড কেন হচ্ছে এবং সমাধান

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা নাকি বলিয়াছেন তারা ফেসবুক বন্ধ করিয়ে দিবেন এরকম পরিকল্পনা নিয়েছেন। গত ৪ বছর ধরে নিয়মিত এরকম মেসেজ ইনবক্স এ ঘুরে বেড়াচ্ছে। যদিও ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা সেটা নোটিশ হিসেবে আপনাদের ওয়ালে সেটা দেখানোর ক্ষমতা রাখে। তা না করে কেনই বা অন্যদেরকে ইনবক্স করে জানানোর দায়িত্ব দিলেন? কারণ আসলে এই মেসেজ তিনি দেননি। কিছু অবুঝ বালক বালিকা না বুঝে কিছু মানুষের ফাঁদে পা দিয়ে এই কাজ করে যাচ্ছেন। কেননা তারা জানেন না এরকম মেসেজ অনেক মানুষকে দিতে থাকলে স্প্যাম বা বিজ্ঞাপন হিসেবে গন্য হয় যা ফেসবুক পছন্দ করে না এবং ফলাফল সরূপ মেসেজ দিতে থাকা মানুষের অ্যাকাউন্ট বাতিল ঘোষণা করে থাকে। অতএব আপনি এই মেসেজ পাঠিয়ে বাতিল থেকে বাঁচবেন না বরং বাতিল হবেন।
 
আজকে আবার অনেকেই প্রোফাইল পিকচার চেঞ্জ, ইমেইল চেঞ্জ, ফোন নাম্বার যুক্ত করা ইত্যাদি কাজ করে যাচ্ছেন কেননা শুনেছেন যে অনেকের অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড হচ্ছে। আসলে যাদেরটা সাসপেন্ড হবার তাদেরটা অনেক আগেই হয়ে গিয়েছে। এর কারণ উপরের ব্যাপারটাই। ফেসবুকে সবচেয়ে বেশী স্প্যাম বা বিজ্ঞাপন পাঠানো হয়ে থাকে বাংলাদেশ, ইন্ডিয়া থেকে শুরু করে আশেপাশের কিছু দেশ থেকে। যেসকল অ্যাকাউন্ট থেকে অতীতে এরকম কাজ করা হয়েছে আসলে সেগুলোই এবারের টার্গেট। কেননা এরকম কাজের কারণে ফেসবুকেরও কিছুটা লস হচ্ছে। যেমন এরকম ফেক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে অনেক ফেসবুক পেইজে লাইক বাড়ানোর কাজ করা হয়ে থাকে যেখানে সেই কাজ ফেসবুকও করে তবে অর্থের বিনিময়ে। এবং এটাই তাদের আয়। অতএব বাংলাদেশের যেসকল অ্যাকাউন্ট এর কারণে ফেসবুকের লস হচ্ছে সেসকল অ্যাকাউন্ট রাখবে না সেটাও স্বাভাবিক।
 
যদি অ্যাকাউন্ট বাঁচাতেই চান, স্প্যামিং বন্ধ করে নিয়মিত ফেসবুকের ভদ্র মানুষ হয়ে থাকতে চেষ্টা করুন। অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড হবে না। আর অন্য কেউ ইনবক্স এ কিছু শেয়ার করার কথা বলে থাকলে সেটা ইগ্নর করুন। সেটা ধার্মিক বিষয়ও হতে পারে আবার রাজনীতি বিষয়ক অথবা উপরের টপিক এর মতো মিথ্যে কিছু। মনে রাখবেন হাদিসে কখনোই বলা হয় নি আপনি ফেসবুকে এটা ওটা শেয়ার করলে এটা ওটা হতে পারে। অতএব যে আপনাকে সেই মেসেজটি দিচ্ছে সেও না বুঝেই না জেনেই দিচ্ছে শুধু ধর্ম বিষয়ক হওয়ার কারণে।

Related Posts

Leave A Comment